হাদীসের নামে জালিয়াতি প্রচলিত মিথ্যা হাদীস ও ভিত্তিহীন কথা-PDF

হাদীসের নামে জালিয়াতি প্রচলিত মিথ্যা হাদীস ও ভিত্তিহীন কথা

লেখকঃ- ড. খােন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর।

পি-এইচ. ডি. (রিয়াদ), এম. এ. (রিয়াদ), এম.এম. (ঢাকা) অধ্যাপক, আল-হাদীস এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ,

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

প্রকাশকঃ- উসামা খােন্দকার আস-সুন্নাহ পাবলিকেশন্স আস-সুন্নাহ ট্রাস্ট ভবন পৌর বাস টার্মিনাল, ঝিনাইদহ-৭৩০০ মােবাইল: ০১৭১১১৫২৯৫৪, ০১৭১৫৪০০৬৪০

বিক্রয় কেন্দ্র: ৬৬ প্যারিদাস রােড, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০ মােবাইল: ০১৯৮৬২৯০১৪৭

প্রথম প্রকাশ : যুলকাদ ১৪২৬ হিজরী, ডিসেম্বর ২০০৫ খৃস্টাব্দ পরিমার্জিত ও পরিবর্ধিত চতুর্থ সংস্করণ:

রামাদান ১৪৩৪ হিজরী, আষাঢ় ১৪২০ হিজরী বঙ্গাব্দ, জুলাই ২০১৩ খৃস্টাব্দ

হাদিয়া: ৩৮০ (তিনশত আশি) টাকা মাত্র।

বইটির পিডিএফ লিকং নিচে দেয়া হলো…………

বাণী

নাহমাদুহু ওয়া নুসাল আলা রাসূলিহীল কারীম, আম্মাবাদ

কুরআন কারীমের পরে দীন ইসলামের মূলভিত্তি হলাে হাদীস  এজন্য হাদীস বিশুদ্ধভাবে শিক্ষা করতে, মুখস্থ রাখতে ও প্রচার করতে নির্দেশ দিয়েছেন রাসূলুল্লাহ , একই সাথে তিনি কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন তার নামে মিথ্যা বলতে । মিথ্যা হতে পারে এরূপ সন্দেহজনক কোনাে কথা তার নামে যে বলবে, সেও মিথ্যাবাদী বলে গণ্য হবে বলে তিনি জানিয়েছেন ।

হাদীসের নামে জালিয়াতির প্রচেষ্টা সেই প্রাচীন যুগ থেকেই অব্যাহত রয়েছে। অপরদিকে সাহাবীগণের যুগ থেকেই মুসলিমগণ হাদীসের নামে সকল প্রকার মিথ্যা ও জালিয়াতি প্রতিরােধের ব্যবস্থা নিয়েছেন। মুসলিম উম্মাহর প্রসিদ্ধ মুহাদ্দিসগণ সকল জাল হাদীস চিহ্নিত করেছেন । কিন্তু এ বিষয়ক সঠিক জ্ঞানের অভাবে অনেক আলিম বা নেককার মানুষও না জেনে অনেক জাল হাদীস বলেন, প্রচার করেন বা লিখেন। এভাবে সমাজে অনেক জাল হাদীস ছড়িয়ে পড়েছে । আমরা অনেকেই গাফলতির কারণে এ কঠিন পাপের মধ্যে নিপতিত হচ্ছি।

জাল হাদীসের উপর আমল করেও আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। আল্লাহ এবং তাঁর রাসূল (সাঃ) যা করতে বলেন নি তা করে আমরা পণ্ডশ্রম করছি । উপরন্তু আমরা সহীহ হাদীসের উপর আমল করার সুযােগ থেকেও বঞ্চিত হচ্ছি। এজন্য মুসলিম উম্মাহর আলিমগণের উপর অর্পিত একটি ফরয দায়িত্ব হলাে সমাজে প্রচলিত জাল হাদীসগুলাে চিহ্নিত করা এবং এগুলাের খপ্পর থেকে সমাজকে রক্ষা করা। রাসূলুলাহ (সাঃ)-এর সুন্নাতকে জীবিত করার এ হলাে অন্যতম পদক্ষেপ । আমার হােস্পদ জামাতা খােন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীরকে আমি গত কয়েক বছর যাবৎ এ বিষয়ে গ্রন্থ রচনার জন্য নির্দেশ ও উৎসাহ প্রদান করছি । আল্লাহ পাকের রহমতে এতদিনে সে এ বিষয়ে একটি বই প্রকাশ করতে সক্ষম হয়েছে ।

আমি আমার মুহিব্বীন, মুরীদীন ও দলমত নির্বিশেষে সকল মুসলমিকে বইটি পাঠ করতে অনুরােধ করছি । যে সকল কথাকে ‘জাল হাদীস’ বলে জানতে পারবেন সেগুলােকে কোনাে অজুহাতেই আর বলবেন না বা পালন করবেন না। তাহকীক করুন । কিন্তু ‘অমুক বলেছেন, ‘তমুক লিখেছেন, ‘সহীহ না হলে কি তিনি বলতেন বা লিখতেন ইত্যাদি কোনাে অজুহাতেই সেগুলাে বলবেন না বা পালন। করবেন না। আমাদের প্রত্যেককে আল্লাহর দরবারে তার নিজের কর্মের হিসাব দিতে হবে, অন্যের কর্মের নয় ।

কেউ হয়ত না জেনে বা ভুলে জাল হাদীস বলেছেন, সে কারণে কি আমি জেনে-শুনে একটি জাল হাদীস বলব? কারাে হয়ত অনেক নেক আমল আছে, যেগুলাের কারণে আল্লাহ তার এরূপ দু’-চারটি ভুলভ্রান্তি ক্ষমা করবেন, কিন্তু আমার এ ইচ্ছাকৃত কঠিন পাপের ক্ষমা মিলবে কিভাবে?

কোনাে হাদীস জাল বলে জানার পরে মুমিনের দায়িত্ব হলাে তা বলা বা পালন স্থগিত করা । প্রয়ােজনে সে বিষয়ে বিস্তারিত গবেষণা করে নিশ্চিত হতে হবে। কোনাে বিষয়ে এ গ্রন্থের লেখকের ভুল হয়েছে বলে মনে হলে আপনারা আরাে ‘ইলমী তাহকীক বা। গবেষণা করবেন এবং মুহাদ্দিসগণের মতামত বিস্তারিত জানার চেষ্টা করবেন। ভুল প্রমাণিত হলে তাকে বা আমাকে জানাবেন। তবে গায়ের জোরে বা মুহাদ্দিসগণের সুস্পষ্ট মতামতের বাইরে কিছু বলবেন না। মনে রাখবেন যে, কোনাে মুসলিম যদি জীবনে একটিও ‘হাদীস’ না বলেন তবে তার কোনাে ক্ষতি হবে না । কিন্তু ওয়ায, দাওয়াত, ইবাদত বা অন্য যে কোনাে নেক উদ্দেশ্যে যদি তিনি একটিও মিথ্যা বা জাল হাদীস বলেন তবে তা হবে কঠিনতম একটি পাপ।

মুসলিম উম্মাহ একমত যে, জাল হাদীস বলা বা রেওয়ায়াত করাও কঠিনতম হারাম । পােশাক-আশাক, পানাহার ইত্যাদির ক্ষেত্রে হারাম হালাল বিষয়ে যেমন সতর্ক থাকতে হয়, কথাবার্তার ক্ষেত্রেও তেমনি হারাম-হালাল বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) যা বলেন নি, তা তার নামে বলা হলাে সবচেয়ে কঠিন হারাম কথা । এ বিষয়ে সতর্কতা অতীব জরুরী।

মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া করি, তিনি যেন এ গ্রন্থখানা কবুল করেন এবং লেখককে সর্বোত্তম পুরস্কার প্রদান করেন। বইটি প্রকাশে। যারা সহায়তা করেছেন এবং যারা গ্রন্থটি পড়বেন বা প্রচার করবেন তাদের সকলকে আল্লাহ দুনিয়া ও আখিরাতের শক্তি, কত, কল্যাণ ও উন্নতি দান করুন।

আমীন!