মানুষের চিরশত্রু শয়তান-আবদুস শহীদ নাসিম-PDF Download

শতাব্দী প্রকাশনী ৪৯১/১ মগবাজার ওয়ারলেস রেলগেইট ঢাকা-১২১৭, ফোন : ৮৩১১২৯২

প্রকাশকাল প্রথম প্রকাশ : অক্টোবর ২০০৯

কম্পােজ Saamra Computer

মুদ্রণ আল ফালাহ প্রিন্টিং প্রেস ৪২৩ বড় মগবাজার, ঢাকা-১২১৭

শয়তানের পরিচয়

আরবি ভাষায় শয়তান মানে- সীমালংঘনকারী, দাম্ভিক, স্বৈরাচারি। এই বৈশিষ্ট্যের জিন এবং মানুষ উভয়ের জন্যেই শয়তান পরিভাষা ব্যবহার করা হয়। কুরআন মজিদে উভয়ের জন্যে শয়তান পরিভাষা ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন, সূরা আল বাকারার ১৪ নম্বর আয়াতে ইসলামের বিরুদ্ধাচারী নেতাদের শয়তান বলা হয়েছে।শয়তান শব্দটি একটি পরিভাষা হিসেবে প্রাচীন কাল থেকেই সকল ধর্মের লােকদের কাছে একটি সুপরিচিত শব্দ। এ শয়তান জিনদের অন্তরভুক্ত

শয়তান কথাটি সর্বপ্রথম সেই জিনটির জন্যে ব্যবহার করা হয়েছে, যে আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করে প্রথম মানুষ আদম আলাইহিস সালামকে সাজদা করতে অস্বীকৃতি জানায়। কুরআন মাজিদে শয়তান শব্দটি একবচন ও বহুবচনে ৮৮ বার ব্যবহৃত হয়েছে। শয়তানকে কুরআন মজিদে ইবলিসও বলা হয়েছে। কুরআন মজিদে ইবলিস শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে ১১ বার। শয়তানকে কুরআন মজিদে খান্নাসও বলা হয়েছে। এ শব্দটি , এর অর্থ- সামনে এসে আবার পিছিয়ে যাওয়া,

ইবলিস আল্লাহর হুকুম সত্ত্বেও আদমকে সাজদা করেনি। পৃথিবী থেকে জিনদের কর্তৃত্ব বিলুপ্ত করার পর মহান আল্লাহ ঘােষণা করলেন :

خليفة•

إني جاعل في الأرض

অর্থ : আমি পৃথিবীতে (নতুন করে) প্রতিনিধি/আরেকটি প্রজন্ম সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। (সূরা ২ আল বাকারা : আয়াত ৩০) অর্থাৎ পৃথিবীর ব্যবস্থাপনা পরিচালনার জন্যে আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্যে আল্লাহ একটি নতুন প্রজাতি সৃষ্টি করার মনস্থ করলেন। এ প্রজাতির নাম দিলেন তিনি মানুষ। সৃষ্টি করলেন তিনি এ প্রজাতির প্রথম মানুষ আদমকে। পৃথিবীর প্রতিনিধিত্ব করার সব জ্ঞান দান করলেন তিনি আদমকে। পৃথিবীর প্রতিনিধিত্বের কর্তৃত্ব পরিচালনার জন্যে প্রয়ােজন ফেরেশতাদের সহযােগিতা। তাই মহান আল্লাহ ফেরেশতাদের হুকুম করলেন আদমকে সাজদা করতে। অর্থাৎ আদম ও তার সন্তানদের আনুগত্য করার প্রতীকি প্রমাণ পেশ করতে। ফেরেশতারা সবাই আদমকে সাজদা করে। কিন্তু সাজদা করতে অস্বীকৃতি জানায় ইবলিস