জুম্মার দিন সূরা কাহাফ তিলাওয়াতের ফজিলত চলুন হাদীস থেকে জানি

জুম্মার দিন সূরা কাহাফ তিলাওয়াতের ফজিলত চলুন হাদীস থেকে জানি,

বাংলা অর্থসহ তিলাওয়াত শুনতে নিচের বাটনটিতে ক্লিক করুন

 

 ১- আবু দারদা (রাঃ) হতে বর্ণিত,নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ

“যে ব্যক্তি সূরা কাহাফের প্রথম দশটি আয়াত মুখস্ত করবে (এবং তা পাঠ করবে) তাকে দাজ্জালের ফিতনা হতে হেফাজতে রাখা হবে”।

(রেফারেন্সঃ সহীহ মুসলিম)

২- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেনঃ

“যে ব্যক্তি সূরা কাহাফ পাঠ করবে, কিয়ামতের দিন তার জন্য এমন একটি নূর হবে, যা তার অবস্থানের জায়গা থেকে মক্কা পর্যন্ত আলোকিত করে দিবে।

আর যে ব্যক্তি উহার শেষ দশটি আয়াত পাঠ করবে, তার জীবদ্দশায় দাজ্জাল বের হলেও সে তার কোন ক্ষতি কর`তে পারবে না”।

(রেফারেন্সঃ সিলসিলায়ে সহীহা, হাদীছ নং-২৬৫১)

Aazeen Of Islam

৩- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেনঃ

“যে ব্যক্তি জুমআর রাত্রিতে সূরা কাহাফ পাঠ করবে, তার জন্য স্বীয় অবস্থানের জায়গা হতে পবিত্র মক্কা পর্যন্ত একটি নূর হবে”।

(রেফারেন্সঃ সহীহ তারগীব ওয়াত্ তারহীব, হাদীছ নং- ৭৩৬)

৪- অন্য বর্ণনায় এসেছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ “যে ব্যক্তি জুমআর দিনে সূরা কাহাফ পাঠ করবে, তার জন্য পরবর্তী জুমআ পর্যন্ত আলোকময় হবে”।

(রেফারেন্সঃ সহীহ তারগীব ওয়াত্ তারহীব, হাদীছ নং- ৭৩৬)

Aazeen Of Islam