কবীরা গুণাহ্ তাওবা ডাঃ মােঃ সেলিম রেজা-Pdf Download

সম্পাদনায়ঃ

ডাঃ মােঃ সেলিম রেজা

এম.বি.বি.এস, এম.ফিল সহকারী অধ্যাপক, প্যাথলজি বিভাগ শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ, বরিশাল।

সহযােগিতায়ঃ

ডাঃ মােঃ ফয়জুল বাশার

এম.বি.বি.এস, এম.ফিল সহযােগী অধ্যাপক, প্যাথলজি বিভাগ শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ, বরিশাল

শির্ক কত প্রকার?

অপরাধের মাত্রা এবং পরিণতির উপর ভিত্তি করে শির্ককে ভাগ করা যায়। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়সাল্লাম) শির্ককে প্রধানতঃ দু’ভাগে বিভক্ত করেছেন:

(ক) শির্ক এ আকবর (Major Shirk) বা বড় শির্ক (খ) শির্ক এ আসগর (Minor Shirk) বা ছােট শির্ক

বড় শির্ক (Major Shirk) বিশ্বাস জাতীয় বিষয়াদি ও উপাসনার ক্ষেত্রে আল্লাহ তা’আলার সাথে কাউকে শরীক বা সমান করাই হচ্ছে মূলত শিরকে আকবার বা বড় শির্ক। মানুষের মাঝে উপাসনা কেন্দ্রিক শির্ক সর্বাধিক সংঘটিত হয় বলে অনেকে এটাকে শুধু উপাসনার সাথেই সীমাবদ্ধ রেখেছেন। যেমন কেউ এর সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বলেছেন: “আল্লাহর উপাসনাসমূহের কোন উপাসনা গায়রুল্লাহের উদ্দেশ্যে করাকে শির্কে আকবার বলা হয়। তবে শির্কে আকবার শুধুমাত্র উপাসনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ না। থেকে তা আল্লাহর রুবুবিয়্যাত এবং তাঁর গুণ বৈশিষ্ট্যের মধ্যেও হতে পারে। বস্তুতঃ তাওহীদ বিরােধী ধ্যান-ধারণা এবং সকল আচার-আচরণই বড় শির্কের অন্তর্ভুক্ত। তাই অনেকে এ শির্কের সংজ্ঞা দিয়েছেন এভাবে- শির্কে অবার বলা হয় একমাত্র আল্লাহর হককে আল্লাহ্ ব্যতীত কাউকে নিবেদন করা। অর্থাৎ আল্লাহর রুবুবিয়্যাতের কোন অংশ অথবা তাঁর উলুহিয়্যাতের কোন

অংশ অথবা তাঁর নাম ও গুণাবলীর কোন অংশকে তিনি ব্যতীত কাউকে নিবেদন করা বড় শির্ক। আল্লাহ তা’আলার জাত এবং গুণাবলীর যে বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং যে বৈশিষ্ট্যগুণে তিনি আমাদের একক রব ও উপাস্য, সেখানে অন্য কোন সত্তা যেমন নবী, রাসূল, ফেরেশতা, জিন-পরী, পীর, অলী, দরবেশ প্রমূখ অথবা কোন সৃষ্টবস্তু যেমন চন্দ্র, সূর্য, গ্রহ, তারকা, পাথর, গাছ-পালা, আগুন ইত্যাদিকে আল্লাহ তা’আলার এ সব বৈশিষ্ট্যেসমূহের কোন না কোন বৈশিষ্ট্যের সমান বা আংশিক অধিকারী বলে বিশ্বাস করা হলে এবং এদের উদ্দেশ্যে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ও অন্তর দ্বারা উপাসনামূলক কোন কর্ম করা হলে শির্কে আকবর বা বড় শির্ক সংঘটিত হয়।

এ জাতীয় শিরক কখনাে হয় প্রকাশ্যে যেমন, দেব-দেবী ও মূর্তি পূজকদের শির্ক, কবর-মাজার, মৃত ও গায়েবী ব্যক্তি পূজকদের শির্ক ইত্যাদি।

এ শির্ক কখনাে হয় অপ্রকাশ্যে, যেমন আল্লাহ ছাড়া অন্যান্য প্রভূদের উপর ভরসা করা অথবা আল্লাহর ন্যায় তাদেরকে ভয় করা কিংবা আল্লাহকে ভালবাসার ন্যায় কোন মখলুককে মহব্বত করা ইত্যাদি।