ইসলামের শাস্তি আইন

ড. আহমদ আলী

বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার

ঢাকা

শাস্তির ক্ষেত্রে উত্তরাধিকারীদের দাবী

সাধারণত হুদূদের ক্ষেত্রে বাদীর মৃত্যুর পর তার উত্তরাধিকারীদের দাবী আমলে নেয়া হবে না। তবে শাফি’ঈ ইমামগণের মতে, যিনার অপবাদের সাথে যেহেতু বান্দাহ অধিকারও জড়িত রয়েছে, তাই এক্ষেত্রে অপবাদ-আরােপিত ব্যক্তির মৃত্যুর পর উত্তরাধিকারীদের দাবী আমলে নেয়া হবে। কিসাসের বেলায় নিহত ব্যক্তির ওয়ারিছরা উত্তরাধিকারের ভিত্তিতে নয়; বরং নিহত ব্যক্তির প্রতিনিধি হিসেবে কিসাসের দাবী করবে। তাযীরাত যদি মানুষের অধিকারের সাথে জড়িত হয়, তা হলে সে ক্ষেত্রে উত্তরাধিকারীদের দাবী আমলে নেয়া হবে। আর যদি তা আল্লাহর অধিকারের সাথে জড়িত হয়, তাহলে উত্তরাধিকারীদের দাবী আমলে নেয়া হবে না।


অপরাধীর ওপর হদ্দ কায়িম করার শর্তসমূহ ঃ

নিম্নোক্ত শর্তসমূহ পাওয়া গেলেই কেবল একজন অপরাধীর ওপর হদ্দ কার্যকর করা হয়। ১. প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া ঃ অপরাধীকে প্রাপ্তবয়স্ক হতে হবে। অতএব অপ্রাপ্ত বয়স্ক

কোন ছেলে বা মেয়ে হুদূদ জাতীয় কোন অপরাধ করলে তার ওপর হদ্দ

কায়িম করা যাবে না। তবে সাধারণ দণ্ড দেয়া যাবে। ২. সুস্থ বিবেক-বুদ্ধিসম্পন্ন হওয়া ও অপরাধীকে সুস্থ বিবেক-বুদ্ধিসম্পন্ন হতে